নতুনদের জন্য Google Blogger নাকি WordPress, কোনটি উপযুক্ত?

আমরা জানি ব্লগিং জগতের বহুল ব্যবহৃত দুটি প্লাটফর্ম হলো “Google Blogger এবং WordPress”. দুটিরই ‍কিছু আলাদা পার্থক্য রয়েছে। নতুনরা সাধারণত জানতে পারেনা যে, তার জন্য কোন উপযুক্ত প্লাটফর্ম হিসাবে বেচে নিলে ভাল হবে। ব্লগিং জগতে ওয়ার্ডপ্রেস সবচেয়ে ভাল অবস্তানে রয়েছে । তবে কিছু কিছু ক্ষেত্রে গুগল ব্লগার ব্যবহার করে ওয়েবসাইট তৈরি করা লাভজনক।

 

প্রত্যেকটা জিনিসের ভাল-মন্দ দুটি দিক থাকে। তেমনি “Google Blogger এবং WordPress” দুটি ব্যবহারের ক্ষেত্রে তাদের আলাদা কিছু স্বতন্ত্র পার্থক্য রয়েছে। তবে সমস্যা হলো আমরা যখন ব্লগিং শুরু করি তখন বুঝতে পারি না যে, কোনটা আমার জন্য উপযুক্ত। পরামর্শ নিতে গিয়েও সঠিক কোন সিদ্ধান্তে উপনিত হতে পারা যায় না। কেউ কেউ গুগর ব্লগারের কথা বলেন আবার বেশিভাগ পরামর্শ দেন ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করার কথা।

 

আসলে কে কি পরামর্শ দিল সেটা চিন্তা না করে, নিজেকেই ঠিক করে নিতে হবে আসলে আপনার জন্য কোনটি উপযুক্ত। কারণ এই বিষয়টি সম্পূর্ণ নির্ভর করে আপনার ব্লগিং এর ধরনের উপরে। আপনি যদি পার্সনালি ব্লগিং করেন তাহলে বিষয়টি হচ্ছে এক রকম। অন্যদিকে ব্যবসায়িক ব্লগ বা প্রফেশনাল ব্লগিং করতে চান, তাহলে বিষয়টি হবে অন্য রকম।

 

ব্লগার নাকি ওয়ার্ডপ্রেস কোনটি আপনার জন্য উপযুক্ত, এ বিষয়টি নির্বাচন করার পূর্বে দুটি সম্পর্কে ভালভাবে জানতে হবে। তাহলে নিজেই সিদ্ধান্ত নিতে পারবেন যে, আপনার জন্য কোনটি ব্যবহার করা লাভজনক। এখানে আমরা Google Blogger এর কিছু সুবিধা-অসুবিধা এবং ব্লগার ও ওয়ার্ডপ্রেস এর তুলনামূলক কিছু পার্থক্য নিয়ে আলোচনা করব।

 

এই পোষ্টটি পড়ার পূর্বে অবশ্যই এই লিংক থেকে WordPress সম্পর্কে ভালভাবে জেনে নিবেন। তাহলে সহজে Decide করতে পারবেন Google Blogger নাকি WordPress, কোনটি আপনার জন্য উপযুক্ত।

 

ব্লগার- Blogger (ব্লগস্পট-blogspot) মূলত কি?

ব্লগার হলো বিশ্বখ্যাত টেক জায়ান্ট Google কর্তৃক পরিচালিত অনেক উন্নত ফ্রি ব্লগিং প্ল্যাটফর্ম, এটি গুগুলের নিজস্ব কোম্পানি। এই প্ল্যাটফর্ম ব্যাবহার করে ব্যক্তিগত ব্লগ বা ব্যাবসায়ীক ব্লগ অর্থাৎ যে কোন ওয়েবসাইট ফ্রি তৈরী করতে পারবেন। আপনার যদি ওয়েব ডেভেলপমেন্ট দক্ষতা থাকে, তাহলে সম্পূর্ণ বিনা মূল্যে এই প্ল্যাটফর্ম ব্যাবহার করে যে কোন ধরনের ওয়েবসাইট তৈরী করা আপনার জন্য কোন ব্যপারই না।

সুতরাং ব্লাগার হচ্ছে গুগলের একটি ফ্রি ব্লগিং কোম্পানী, যে কেউ এটি ব্যবহার করে ওয়েবসাইট কিংবা ব্লগিং শুরু করতে পারেন।

 

Blogger এবং WordPress এর পার্থক্য কি?

ব্লগার এবং ওয়ার্ডপ্রেস দুটিই একই কাজের জন্য ব্যবহার হলেও দুটিই আলাদা কোম্পানী এবং গ্রহককে একই কাজে ভিন্ন ভিন্ন সুযোগ সুবিধা প্রদান করে থাকে।

নিচে আমরা Blogger এবং WordPress এর মধ্যে তুলনামূলক কয়েকটি পার্থক্য আলোচনা করছি। এখান থেকে আপনি Blogger এবং WordPress এর মধ্যে পার্থক্য এবং ‍সুবিধা-অসুবিধা অনুধাবন করতে পারবেন।

 

কাস্টম ডোমেইন Name ব্যবহার

ব্লগারে আপনি সাব ডোমেইন ফ্রি এবং আপনার পছন্দমত ডোমেইন সেট করতে পারবেন।

ওয়ার্ডপেস ফ্রি ভার্সন ব্যবহারে সাবডোমেইন ফ্রি পাবেন তবে আপনার পছন্দমত কোন ডোমেইন সেট করতে পারবেন না। আর যদি WordPress এর পেইড ভার্সন কিংবা WordPress.org ব্যবহার করেন তাহলে পছন্দমত ডোমেইন সেট করতে পারবেন।

 

হোস্টিং জায়গা (Storage Space)

গুগল ব্লগারে 1 GB পর্যন্ত ফ্রি Storage Space পাবেন। তবে গুগলে অন্য সার্ভিস যুক্ত করে ফ্রি স্টোরেজ বাড়িয়ে নিতে পারবেন। এছাড়াও গুগল ক্লাউড থেকে প্রয়োজন মত স্টোরেজ ব্যবহার করতে পারবেন।

ওয়ার্ডপেসে 3 GB পর্যন্ত ফ্রি স্টোরেজ জায়গা পাবেন। যদি ওয়ার্ডপ্রেস এর প্রফেশনাল ভার্সন অর্থাৎ WordPress.org ব্যবহার করেন তাহলে আপনাকে হোস্টিং ক্রয় করে ওয়েবসাইট চালাতে হবে। এটি ওপেন সোর্স হওয়ায় আপনার নিজস্ব হোস্টিং এ পরিচালনা করতে হবে।

 

সাইট কাষ্টমাইজ করার সুবিধা

গুগল ব্লগারে আপনার ইচ্ছামত থিম কাষ্টমাইজ করতে পারবেন। যে কোন কোডিং ব্যবহার করে সাইটকে ডাইনামিক করতে পারবেন।

ওয়ার্ডপ্রেস ফ্রি ভার্সনে কোন ধরণের থিম কাষ্টমাইজ কিংবা কোন কোডিং ব্যবহার করতে পারবেন না। তবে পেইড কিংবা WordPress.org ব্যবহারে যে কোন কোডিং বা থিম কাষ্টমাইজ বা পরিবর্তন করতে পারবেন নিজের ইচ্ছামত।

 

সাইট ডিজাইনের সুবিধা

গুগল ব্লগারে যে কোন ধরণের ডিজাইন করা যাবে। Variable ব্যবহার করে সহজে Drag and Drop করে ডিজাইন পরিবর্তন করা যায়।

ওয়ার্ডপ্রেস ফ্রি ভার্সনে নির্দিষ্ট ডিজাইন ছাড়া পরিবর্তন করার কোন সুযোগ নেই। তবে পেইড ভার্সনে যে কোন ধরণের ডিজাইন করতে পারবেন। ডিজাইন করার জন্য বিভিন্ন ধরনের ওয়েব ডিজাইনের কোডিং জানা প্রয়োজন হয়।

 

Plugins ব্যবহার করার সুবিধা

গুগল ব্লগারে প্লাগইন ব্যবহার করার কোন সুযোগ নেই। শুধুমাত্র কয়েকটি Gadget ব্যবহার করা যায়।

ওয়ার্ডপ্রেস ফ্রি ভার্সনে কোন ধরণের প্লাগিইন ব্যবহার করতে পারবেন না । তবে প্রফেশনাল ভার্সন ব্যবহার করলে হাজার হাজার প্লাগইন ব্যবহার করার সুযোগ পাবেন। এখানে ইচ্ছামত বিভিন্ন Functions ব্যবহার করা সম্ভব।

 

Monetize করার সুবিধা

 

গুগল ব্লগারে Google Adsense ব্যবহারের সুযোগ পাবেন। এছাড়াও যে কোন ধরনের এ্যাড মনিটাইজ করা যায়। এ ক্ষেত্রে গুগল ব্লগারে কোন অর্থ প্রদান করতে হবে না।

 

ওয়ার্ডপ্রেস ফ্রি ভার্সনে এডসেন্স ব্যবহার করার অনুমতি নেই। কোন এড মনিটাইজ করার সুবিধা দিলে তাও আয়ের ৫০% অর্থ ওয়ার্ডপেসকে দিতে হবে। তবে ওয়ার্ডপ্রেস প্রফেশনাল ভার্সন ব্যবহার করলে যে কোন এড মনিটাইজ করতে পারবেন এর জন্য কোন অর্থ ‍দিতে হবে না। গুগল সাইট কিট প্লাগইনটি ব্যবহার করে এডসেন্স এর অটোমেটিক বিজ্ঞাপন সেট করতে পারবেন।

 

Google Blogger এর সুবিধাঃ

 

  • গুগল ব্লগার সম্পূর্ণ বিনা মূল্যে ব্যবহার করা যায়। এখানে কোন প্রকার Hidden Charge নেই।
  • এটি ব্যবহার করা অত্যন্ত সহজ। ওয়ার্ডপ্রেসের মত নানাবিধ অপশনের বাহুল্যতা নেই এখানে। খুব সহজে ব্যবহার ও পরিচালনা করা যায়। বিশেষ করে খুব সহজে নতুন পোষ্ট করা যায়।
  • মাত্র কয়েকটি ক্লিক করে খুব সহজে একটি ব্লগ তৈরি করা যায়।
  • আপনার যদি ওয়েব ডেভেলপমেন্ট সম্পর্কে ধারনা না থাকে, তাহলে এটি আপনার জন্য পারফেক্ট। কারণ এটিতে ব্লগিং করতে কোন প্রকার কোডিং করা লাগে না।
  • ব্লগের কোড কাষ্টমাজ না করেও Variable ব্যবহার করে ব্লগের টেমপ্লেট ডিজাইন করা যায়।
  • ব্লগার গুগলের নিজস্ব প্রোডাক্সট হওয়াতে এর এসইও রেজাল্ট অসাধারণ। কারন গুগল এটিকে ডিফল্টভাবে সার্চ ইঞ্জিন ফ্রেন্ডলি করে রেখেছে। খুব কম সময়ে ও অল্প পরিশ্রমে সার্চ ইঞ্জিনে ভাল ফলাফল পাওয়া সম্ভব।
  • ব্লগারের সকল আর্টিকেল গুগলের নিজস্ব সার্ভার থেকে পরিচালিত হওয়ায়, এগুলো লোড হওয়ার গতি তুলনামূলকভাবে যথেষ্ঠ ভালো।
  • টাকার বিনিময়ে আপনি অনেক ভালমানের প্রিমিয়াম টেমপ্লেট বিভিন্ন ওয়েব ডেভেলপারদের কাছ থেকে কিনে ব্যবহার করতে পারবেন।
  • স্মার্টফোনের জন্য রয়েছে ব্লগারের বিশেষায়িত অ্যাপ্লিকেশন, যার মাধ্যমে আপনি খুব সহজেই আপনার অ্যান্ড্রয়েড, আইফোন থেকে পোস্ট করার সুবিধা পাবেন।
  • ব্লগারের যে কোন ধরনের সমস্যার ব্যাপারগুলি ইন্টারনেটে সার্চ করলেই খুব সহজে পেয়ে যাবেন এবং নিজেই সমাধান করতে পারবেন। এ জন্য কারো মুখাপেক্ষী হতে হবে না।
  • ব্লগ হ্যাক বা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার কোন সুযোগ নেই।
  • গুগল ডিফল্টভাবে ব্লগার থেকে আয় করার জন্য Google Adsense ব্যবহারের সুযোগ দিয়ে রাখছে। তাই এটি ব্যবহার করে গুগল এডসেন্স এর জন্য আবেদন করতে পারবেন।

 

Blogger নাকি WordPress কোনটি আপনার উপযুক্ত?

আমাদের দৃষ্টিতে দুটিই ভালমানের ব্লগিং প্লাটফর্ম। তবে একটি সম্পূর্ণ ফ্রি এবং অন্যটির বেসিক ভার্সন ফ্রি এবং এর প্রফেশনাল ভার্সন ব্যবহার করলে হোস্টিংয়ের জন্য আপনাকে মাসে 4-5 ডলার ব্যয় করতে হবে।

WordPress প্রফেশনাল ভার্সন ব্যবহারের ক্ষেত্রে বাধ্যতামূলকভাবে অর্থের বিনিময়ে হোস্টিং কিনে ব্যবহার করতে হয়। তাই এটিতে ব্লগারের তুলনায় কিছুটা হলেও বাড়তী সুবিধা পাওয়া যায়। তবে আমাদের পরামর্শ হচ্ছে, আপনি যদি ব্লগিংয়ে নতুন হন কিংবা ব্যক্তিগতভাবে ব্লগিং কারতে চান, তাহলে অবশ্যই গুগল ব্লগার বেছে নেয়ার জন্য। অন্যদিকে আপনি যদি ব্যবসায়িক বা প্রতিষ্ঠানের জন্য কিংবা প্রফেশানাল ব্লগিং করতে চান, তাহলে অবশ্যই কিছু টাকা খরছ করে ওয়ার্ডপ্রেস প্রফেশনাল ভার্সন ব্যবহার করে ব্লগিং করবেন।

 

ব্লগিং শুরু করার জন্য কোন প্লাটফর্ম ব্যবহার করবেন তা বেচে নেওয়ার জন্য আমরা জোরালো যে পরামার্শ দিই তা হচ্ছে, আপনাকে নিজেকেই সিদ্ধান্ত নিতে হবে যে কোনটি আপনার জন্য উপযুক্ত। কেননা আপনার ব্লগিং এর ধরণ অন্য কেউ জানে না। সুতরাং আপনি নিজেই যাচাই বাচাই করে ব্লগিং শুরু করুন।

হুদহুদ কম্পিউটার

হুদহুদ কম্পিউটার - মাওনা চৌরাস্তা, শ্রীপুর, গাজীপুর। যোগাযোগঃ Email- [email protected], Mobile-01632391209

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *